রক্তদাতার খেয়াল রাখা জরুরী কি না ( রায়হান বাহাদুর )

65 Views

কাউকে ব্লাডের জন্য কল দেওয়ার আগে কয়েকটা জিনিস মাথায় রাখবেন।

১। ডোনারের যাতায়াত খরচ

২। যে বেলায় ব্লাড দিবে ঐ বেলার খাওয়ার খরচ ( শুধু দূর থেকে আসা রক্তদাতার ব্যাপারে খেয়াল রাখবেন)

৩। ডাব,স্যালাইন পানি,কিছু ফলমূল কিনে দেওয়ার চেষ্টা করবেন। ( কমনসেন্সের ব্যাপার এবং পরবর্তী ২৪ ঘন্টা ডোনারের খোঁজ খবর রাখবেন।
যারা ব্লাড দেয় তারা বেশিরভাগই স্টুডেন্ট, মেসে থেকে পড়াশুনা করে।

তারা প্রতিনিয়ত ব্লাড দেয়। অনেক সময় দেখা যায় পরের দিন এক্সাম তবুও ব্লাড দেয়।

আবার, যারা ব্লাড খুজে দেয় তারাই জানে ১ ব্যাগ ব্লাড খুজে বের করা কতটা কষ্টের।

সময়, শ্রম দিয়ে ডোনারকে খুজে বের করতে হয়।

অনেকেই তো সেগুলা জানেন ই না। এগুলা হাইড স্টোরি থাকে।
কিন্তু রোগীর রিলেটিভদের ব্যবহার বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বিবেকহীনতার পরিচয় দেয়।

কোনো খোজ খবরই নিতে চায় না, যে চরম এই বিপদের সময় এই রক্ত কোথা থেকে এলো।

একজনকে বলে দেয়, তারপর মনে হয় সব দায়ভার ঐ বেচারার।

নিজের সম্মান রক্ষার জন্য হলেও ঐ বেচারা ডোনারকে কেয়ার করে।

অনেক ডোনার জবও করেনা। হয়তো আত্মীয় স্বজন, না হয় পরিচিত, নতুবা মানবতার জন্য মানুষের বিপদে এগিয়ে যায়।
নামীদামী হাসপাতালে ভর্তি করাতে পারেন, একদিনে ৩/৪ হাজার টাকা করে কেবিন ভাড়া দিতে পারেন।

কিন্তু যে মানুষটা তার সবথেকে মূল্যবান জিনিস দিয়ে আপনাকে হেল্প করছে, তার কদর করবেন না, তা হতে পারেনা।
যে দেশে ২৫০মিলি গ্রাম পানির বোতল কিনে খেতে হয়, সে দেশে বিনা টাকায় ৪৫০ মিলি গ্রাম রক্ত দাতাকে সম্মান করা আপনার কর্তব্য।

সংগৃহীত

কৃতজ্ঞতাঃ ( রায়হান বাহাদুর )

Comments

comments

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*